আদমশুমারি কি? আদমশুমারি কেন করা হয়? ষষ্ঠ আদমশুমারি 2021

আদমশুমারি কি?
 তাত্ত্বিক অর্থে না গিয়ে সরাসরি বলতে কোন দেশের বা কোন নির্দিষ্ট অঞ্চলের মানুষ গণনাকেই মূলত আদমশুমারি বলা হয়। পৃথিবীর প্রায় সব দেশেই নিজস্ব আদমশুমারির ব্যবস্থা রয়েছে। বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়। বাংলাদেশেও প্রতি দশ বছর অন্তর অন্তর আদমশুমারি করা হয়। ২০১১ সালে বাংলাদেশে শেষ আদমশুমারি করা হয়। আর সে মোতাবেক বাংলাদেশের জনসংখ্যা ছিল প্রায় ১৪ কোটি ৯৭ লাখের মতো (তথ্যসূত্র)। ২০১১ এর আদমশুমারির রিপোর্ট অনুযায়ী বাংলাদেশে পুরুষ ও মহিলার সংখ্যা প্রায় সমান। জনসংখ্যার দিক দিয়ে সামান্য কিছু অংশ এগিয়ে আছে পুরুষরা। রিপোর্ট অনুযায়ী বাংলাদেশে প্রতি বর্গকিলোমিটারে প্রায় ১০১৫ জন মানুষ বসবাস করে ! 😉 হিসেবের অংকটা অনেক বড় মনে হলেও আসলে ততটা বড় না ! আপনি যদি ঢাকায় থাকেন তাহলে শুধু আপনার বাড়িতেই মোট মানুষের সংখ্যাটা আগে হিসেব করুন। এরপর আশপাশের আর দুই তিনটা বাড়ির হিসেব করলেই দেখবেন হাজার প্রায় ছুঁই ছুঁই ! আর পুরো এক কিলোমিটারে কতো মানুষ থাকতে পারে তা ভাবলে আক্কেল গুড়ুম হয়ে যাবে !

আদমশুমারি কেন করা হয়?
মূলত মানুষ গণনাটাই প্রধান কারণ হলেও মূলত শুধু মানুষ গণনার স্বার্থেই আদমশুমারি করা হয়না। এছাড়াও আনুষঙ্গিক অন্যান্য কিছু বিষয় আছে। রাজ-রাজাদের আমলেও কিন্তু আদমশুমারির দরকার পড়তো ! তবে সে আদমশুমারির মূল উদ্দেশ্য প্রজা গণনা না। মূল উদ্দেশ্য ছিল যাতে সঠিকভাবে রাজস্ব নির্ধারণ করে আদায় করা যায়। এছাড়া যুদ্ধের জন্যে সেনাবাহিনীতেও লোক নিয়োগের জন্যে রাজাদের আদমশুমারির দরকার পড়তো। তবে সব রাজাই যে আদমশুমারি করতো এমনটা না। তাদের সময়ে এটা তেমন একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিলনা। কিন্তু বর্তমানের প্রেক্ষাপটে এই চিত্র সম্পূর্ণ উলটো !
নির্দিষ্ট সময় অন্তর অন্তর আদমশুমারি করলে কোন দেশের জনসংখ্যা কমছে না বাড়ছে সে সম্পর্কে সুষ্ঠু ধারণা পাওয়া যাবে। ধরা যাক একটি দেশের নাম “মখা” এবং ২০০১ সালে সেখানকার জনসংখ্যা ছিল ৫৫৫ জন। পরবর্তীতে দশ বছর পর ২০১১ তে পুনরায় আদমশুমারি করে দেখা গেলো জনসংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬৬৬ তে। এ থেকে সহজেই জেনে নেয়া যাচ্ছে যে দেশটির জনসংখ্যা বাড়ছে। হিসেব নিকেশ করে এও বের করা সম্ভব এই বাড়ার হার কতো।
এছাড়া আদমশুমারির মাধ্যমে কোন দেশের জন্মমৃত্যুর হার সম্পর্কেও জানা যাবে। তাছাড়া সেবামূলক বিভিন্ন ক্ষেত্রে যেমন শিক্ষা, চিকিৎসা, বেকার, শিখিত, অশিক্ষিতসহ আরও নানা তথ্যাদি সংগ্রহ করা যাবে। কোন নির্দিষ্ট শহর, গ্রামের জনসংখ্যাও জানা যাবে সহজেই। ভোটার তালিকা তৈরির কাজেও আদমশুমারির অনেক গুরুত্ব আছে।

ষষ্ঠ আদমশুমারি হবে ২০২১ সালে  

স্যাটেলাইট ইমেজের মাধ্যমে ২০২১ সালে ৬ষ্ঠ ডিজিটাল আদমশুমারি করা হবে। এ কাজে সহায়তা করবে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ন্যাশনাল অ্যারোনটিক্স অ্যান্ড স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (নাসার)।

বলা হচ্ছে, এ পদ্ধতির দশমিক ৫ মিটার এলাকাও চিহ্নিত করা যাবে সহজে। এমনকি একটা সুচ পড়ে থাকলেও ধরা পড়বে ক্যামেরায়। এ পদ্ধতিতে আদমশুমারি সঠিকভাবে হবে বলে মনে করেছে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস)।

এর আগে ২০১১ সর্বশেষ আদমশুমারি ও গৃহগণনা অনুষ্ঠিত হয়। যা পঞ্চম আদমশুমারি বলে পরিচিত। ২০১১ সালের ৫ দিনব্যাপী (১৫ থেকে ১৯ মার্চ) এ গণনা অনুষ্ঠিত হয়। বিবিএস প্রতি ১০ বছর পর পর আদমশুমারি পরিচালনা করে থাকে।

বিবিএস সূত্র জানিয়েছে, এ পদ্ধতিতে দেশের একটি খানাও (পরিবার) বাদ পড়বে না। স্যাটেলাইট ইমেজ দেখে আদমশুমারিতে সারাদেশে চার লাখ গণনাকারী তথ্য সংগ্রহ করবেন। একটি মানুষও গণনার বাইরে থাকবে না। সব মানুষের অবস্থান নিশ্চিত করা সহজ হবে স্যাটেলাইট ইমেজ ব্যবহার করে।

আদমশুমারি মানেই সারাদেশ ব্যাপী বিশাল কর্মযজ্ঞ। কিন্তু ডিজিটাল এই শুমারিতে কোনো খাতা-কলমের ব্যবহার থাকবে না। সব কিছুই অনলাইনে ডাটা সংগ্রহ করা হবে। শুমারির প্রাথমিক কাজ শুরু করে দিয়েছে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস)। ‘পপুলেশন অ্যান্ড হাউজিং সেনশাস ২০২১’  প্রকল্পের আওতায় ৬ষ্ঠ আদমশুমারি অনুষ্ঠিত হবে।

০৭ মে প্রকল্পের নকশা ও পরিকল্পনা নিয়ে ঘরোয়া বৈঠক করেছে বিবিএস। আলোচনায় বিবিএস’র ঊর্ধতন কর্মকর্তা, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, বিদেশি পরামর্শক, আইটি এক্সপার্টসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

স্যাটেলাইট ইমেজ ব্যবহারের বিষয়টা দেখভাল করছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রেজাউল রনি।

স্যাটেলাইট ইমেজ ব্যবহার প্রসঙ্গে তিনি বাংলানিউজকে বলেন, দেশে এবারই প্রথম আদমশুমারিতে স্যাটেলাইট ইমেজ ব্যবহার করা হবে। স্বল্প সময়ে সঠিকভাবে শুমারি অনুষ্ঠিত হবে। এর মাধ্যমে আমরা জানতে পারবো বাংলাদেশের ভূখণ্ডে কোথায় কি আছে। ডাটা কালেক্টরদের তথ্য সংগ্রহ করা সহজ হবে।
 
২০১১ সালের আদশুমারি ৫ দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত হলেও ৬ষ্ঠ আদমশুমারি ৭ দিন ধরে অনুষ্ঠিত হবে। এই সাতদিনে চার কোটি খানায় (পরিবার) তথ্য সংগ্রহ করা হবে। ভাসমান লোকজনকে গণনা করা হবে মধ্যরাতের পরেই। বহুতল ভবনের একজন বাসিন্দাও যাতে গণনা থেকে বাদ না পড়ে সেই কথাও চিন্তা করছে বিবিএস। সঠিক শুমারি দেশবাসীকে উপহার দিতে বিবিএস সব পর্যায় থেকে মতামত গ্রহণ শুরু করেছে।

আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে চার লাখ ডিজিটাল ডাটা কালেক্টর আদমশুমারিতে অংশ নেবেন। তাদের কিভাবে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে সেই বিষয়েও ছক কষছেন বিবিএস। ইমেইল, অনলাইন, ট্যাব, আধুনিক প্রযুক্তিগত জ্ঞান ও অডিও ভিজুয়্যালের বিষয়ে ডাটা কালেক্টরদের প্রশিক্ষণ দেবে বিবিএস।

আদমশুমারির জন্য মাঠ থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হবে সাত দিন। কিন্তু এর পেছনে থাকবে তিন বছরের বিশাল কর্মযজ্ঞ, প্রশিক্ষণ। সব তথ্য সংগ্রহ করতে অত্যাধুনিক ডিভাইস ব্যবহার করা হবে। তথ্যগুলো এমনভাবে সংগ্রহ করা হবে যেন নাগরিক চাইলে এর থেকে সেবা নিতে পারেন।

আদমশুমারির পরিকল্পনা প্রসঙ্গে প্রকল্পের পরিচালক জাহিদুল হক সরদার বাংলানিউজকে বলেন, ২০২১ সালের শুমারি হবে সব থেকে আধুনিক। আমরা লেটেস্ট টেকনোলজি ব্যবহার করবো। মানুষ গণনার ক্ষেত্রে খাতা, কলমের ব্যবহার থাকবে না। সমস্ত তথ্য সংগ্রহ করবো অনলাইনে।

তিনি আরও বলেন, জাতীয় নির্বাচনের থেকেও আদশুমারি দেশের সব থেকে বিশাল কর্মযজ্ঞ। ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে যারা তারা ভোট দিতে পারেন। কিন্তু আদশুমারিতে সমস্ত মানুষকে গণনা করতে হয়। এ লক্ষ্যকে সামনে রেখে আমরা প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছি।

বর্তমানে দেশের জনসংখ্যার সঠিক কোনো পরিসংখ্যান নেই। কারো মতে ২০ কোটি আবারও কেউ বলে ১৬ কোটি। সর্বশেষ আদমশুমারিত ২০১১ সালে অনুষ্ঠিত হয়। ওই জরিপে দেশের মোট জনসংখ্যা ছিলো ১৫ কোটি ২৫ লাখ ১৮ হাজার। ২০২১ সালের শুমারির পরে সঠিক তথ্য জানা যাবে। নিয়ম অনুযায়ী ১০ বছর পর পর আদমশুমারি করা হয়।

বাংলাদেশে প্রথম আদমশুমারি হয় ১৯৭৪ সালে। তারপর ১৯৮১ সাল থেকে প্রতি ১০ বছর পর পর আদমশুমারি হয়ে আসছে।

 

  •  আদমশুমারি তে সম্ভাব্য প্রশ্নাবলীঃ
  •      বিল্ডিং নম্বর (পৌর বা স্থানীয় কর্তৃপক্ষ বা জনগণনা নম্বর)
  •      আদমশুমারি বাড়ির নম্বর
  •      বাড়ির উপাদান
  •      বাড়িটি কীসের জন্য ব্যবহৃত হচ্ছে?
  •      বাড়ির অবস্থা
  •      বাড়ির নম্বর
  •      ঘরে মোট লোক সংখ্যা
  •      পরিবারের প্রধানের নাম
  •      মাথা পুরুষ বা মহিলা
  •      পরিবারের প্রধান কি এসসি / এসটি বা অন্য কোনও সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত?
  •      বাড়ির মালিকানার স্থিতি
  •      ঘরে ঘর সংখ্যা
  •      কত বিবাহিত দম্পতি বাড়িতে থাকেন
  •      পানীয় জলের মূল উত্স
  •      বাড়ির জলের উত্স
  •      বিদ্যুতের মূল উত্স
  •      বাসা টয়লেট
  •      কি ধরণের টয়লেট আছে
  •      নিকাশী ব্যবস্থা সম্পর্কে
  •      ওয়াশরুম বা না
  •      রান্নাঘর থাকুক বা না থাকুক না কেন, এতে এলপিজি / পিএনজি সংযোগ রয়েছে
  •      রান্নাঘরের জ্বালানী
  •      রেডিও / ট্রানজিস্টর
  •      টিভি
  •      ইন্টারনেট অ্যাক্সেস বা না
  •      ল্যাপটপ / কম্পিউটার বা না
  •      টেলিফোন / মোবাইল ফোন / স্মার্টফোন
  •      সাইকেল / স্কুটার / মোটরসাইকেল / মোপেড
  •      গাড়ি / জিপ / ভ্যান
  •      কোন শস্য প্রধানত বাড়িতে ব্যবহৃত হয়
  •      মোবাইল নম্বর (আদমশুমারী সম্পর্কিত যোগাযোগের জন্য)

 

Leave a Reply